ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে একসঙ্গে ৩ সন্তান জন্ম দিলেন এক মা


চট্টগ্রাম সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ০৭:৫৩ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭, সোমবার
চট্টগ্রামে একসঙ্গে ৩ সন্তান জন্ম দিলেন এক মা

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে একসঙ্গে তিন কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছেন তাসনুর বেগম নামের এক গৃহবধূ। মাসহ তিনটি সন্তানই বর্তমানে হাসপাতালে সুস্থ রয়েছে। রোববার দিবাগত রাত ২ টায় মিরসরাই উপজেলা সদরের মাতৃকা হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে প্রসুতি তাসনুর বেগম এই তিন সন্তানের জন্ম দেন।

মাতৃকা হাসপাতালের গাইনি বিশেষজ্ঞ ও সার্জন প্রফেসর ডা. মো. জামসেদ আলম এই অপারেশন করেন। একসঙ্গে তিন নবজাতকের জন্মের এলাকায় খবর ছড়িয়ে পড়লে একনজর তাদের দেখতে হাসপাতালে ভিড় জমাচ্ছেন উৎসুক লোকজন।

সরেজমিনে ওই হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, জমজ তিন কন্যা সন্তানের মধ্যে একটি সন্তান হাসাপাতালের বেডে শোয়ানো রয়েছে। বাকি দুইটি সন্তান দুই জন মহিলা কোলে নিয়ে পরম মমতায় জড়িয়ে রেখেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই দুটি সন্তানই দুই নিঃসন্তান পরিবারকে দেয়ার কথাবার্তা চলছে। আর তাই ওই দুই মহিলা তাদের পছন্দের বাচ্চাকে নিয়ে আদর যত্ন শুরু করেছেন।

জমজ এই তিন কন্যা সন্তানের বাবা জাফর ইমাম বলেন, আমার বাড়ি ফেনী জেলার সোনাগাজি পৌরসভার চন গনেস গ্রামে। এই তিনটি সন্তান ছাড়াও আমার আগের আরো ২টি কন্যা সন্তান রয়েছে। তাদের একজনের বয়স ৮ বছর ও আরেক জনের বয়স ৫ বছর। আমি সোনাগাজি মহিপাল রোড়ে বাস চালাই। অভাবের সংসার তাই এই তিন সন্তানের মধ্যে দুটি সন্তান দুই নিঃসন্তান পরিবারকে দেয়ার কথা চলছে। কথাবার্তা চুড়ান্ত হলে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর কাগজপত্র করে বাচ্চা দুটিকে তাদের হাতে তুলে দেবো। এছাড়া অনেকেই আসছে আমার বাচ্চগুলো নেওয়ার জন্য।

এ ব্যাপারে মাতৃকা হাসপাতালের গাইনি বিশেষজ্ঞ ও সার্জন প্রফেসর ডা. মো. জামসেদ আলম জানান, প্রসব ব্যাথা নিয়ে রোববার দিবাগত রাত ১২ টার সময় তাসনুর বেগম হাসপাতালে ভর্তি হয়। হাসপাতালে আনার পূর্বে গর্ভাবস্থায় এই প্রসুতির নিয়মিত চেকআপ ও কোন আল্টাসনোগ্রাফী করানো হয়নি। প্রসুতির অবস্থা খারাপ থাকাতে সবকিছু বিবেচনা করে রাতেই আমরা সিজারিয়ান অপারেশনের সিদ্ধান্ত নিই। রাত ২ টায় অপারেশনের মাধ্যমে তানসুর বেগমের তিনটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। বাচ্চাগুলোর ওজন তুলনামূলকভাবে কম। প্রথম বাচ্চার ওজন ১.৯ কেজি, দ্বিতীয় বচ্চাটির ওজন ২ কেজি ও তৃতীয় বচ্চাটির ওজন ১.৬ কেজি। বর্তমানে মা ও তার তিন সন্তান মোটামুটি ভালো আছে।

অমৃতবাজার/দিদারুল/রেজওয়ান

Loading...