ঢাকা, রোববার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০ | ১৩ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রী-এমপিদের প্রচার বন্ধে ইসি মাহবুবের ইইউ নোট


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০২:০৫ পিএম, ১৪ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার | আপডেট: ০২:০৭ পিএম, ১৪ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার
মন্ত্রী-এমপিদের প্রচার বন্ধে ইসি মাহবুবের ইইউ নোট ছবি- ইসি মাহবুব তালুকদার

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, বিদ্যমান আচরণবিধি অনুযায়ী নির্বাচন সম্পর্কিত যে কোনো কমিটিতে মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের অংশগ্রহণের সুযোগ নেই। এই নির্বাচনী কার্যক্রম ঘরে বা বাইরে যে কোনো স্থানে হতে পারে। এ বিষয়ে আচরণ বিধিমালা, ২০১৬-এর বিধান অত্যন্ত সুস্পষ্ট। দুঃখজনক যে বিধিমালা যারা প্রণয়ন করেছেন, তারাই এখন এর বিরোধিতা করছেন।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সংসদ সদস্যদের নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ ও প্রচারের বিষয়ে আবারও আনঅফিসিয়াল (ইউও) নোট দিয়েছেন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। এতে তিনি আচরণ বিধিমালা অনুযায়ী মন্ত্রী ও এমপিদের প্রচারের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি স্পষ্ট করে পরিপত্র জারি করতে অনুরোধ জানান।

বিভ্রান্তি নিরসনে পরিপত্র জারির কথা অত্যাবশ্যক উল্লেখ করে মাহবুব তালুকদার ইউও নোটে বলেন, আচরণ বিধিমালা সম্পর্কে যাতে কোনো প্রকার বিভ্রান্তির অবকাশ না থাকে, সেজন্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে সুস্পষ্ট নির্দেশনাসহ একটি পরিপত্র জারি করা যেতে পারে। নইলে এসব বিভ্রান্তি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করবে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও দুই সিটির রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সোমবার এই ইউও নোট পাঠান। একই দিন বিকালে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তার এ অবস্থানের কথা সাংবাদিকদের জানান। তিনি বলেন, সিটি নির্বাচনে আচরণবিধি কঠোরভাবে পরিপালন নিশ্চিত করতে না পারলে নির্বাচন কমিশন আস্থার সংকটে পড়বে।

৯ জানুয়ারির ইউও নোটের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে নতুন ইউও নোটে মাহবুব তালুকদার বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নির্বাচনী প্রচার ও কার্যক্রমে সংসদ সদস্যদের অংশগ্রহণ নিয়ে আমি উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলাম। মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের নির্বাচনী প্রচার ও নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ নিয়ে সেই উদ্বেগ বর্তমানে আরও ঘনীভূত হয়েছে। কারণ গত কয়েকদিনে বিধিমালা নিয়ে নানা প্রকার বিভ্রান্তি লক্ষ করা যাচ্ছে।

এতে তিনি আরও উল্লেখ করেন, ঢাকা সিটি নির্বাচনে আচরণ বিধিমালা কঠোরভাবে পরিপালন নিশ্চিত করতে না পারলে নির্বাচন কমিশন আস্থার সংকটে পড়বে, যা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

অমৃতবাজার/এমআর