ঢাকা, রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০ | ২১ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিক্ষিকাকে কটূক্তিকারীর বিচার দাবি, কুশপুত্তলিকা দাহ


হাবিপ্রবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০৪:৪৩ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৪:৪৫ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার
শিক্ষিকাকে কটূক্তিকারীর বিচার দাবি, কুশপুত্তলিকা দাহ ছবি-অমৃতবাজার ।

দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. ফাহিমা খানমকে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ ভাষায় গালিগালাজকারী গাড়ি চালক জাহাঙ্গীর আলমের বিচার দাবিতে অবস্থান, মানব্বন্ধন ও কুশপুত্তলিকা দাহ করেছে `নারীকণ্ঠ`। এ ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে বিচার চেয়ে একটি লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন ড. ফাহিমা খানম।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে তারা এই কর্মসূচী পালন করে। এ সময় শিক্ষার্থীরা গাড়ি চালক জাহাঙ্গীর আলমের কালোহাত ভেঙে দাও-গুড়িয়ে দাও, দুই গালে জুতা মার তালে তালে ইত্যাদি স্লোগান দিতে থাকে।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, `দেশের প্রধানমন্ত্রী নারী, দেশের স্পিকার নারী সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সিনিয়র শিক্ষক অধ্যাপক ড. ফাহিমা খানমকে একজন গাড়ি চালক কিভাবে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ ভাষায় গালিগালাজ করার সাহস পায়। এর পিছনে কারা মদদ দাতা রয়েছে তাদেরকে আমরা দেখতে চাই। ঐ কর্মচারী শুধু একজন শিক্ষককেই অপমান করে নাই পুরো নারী সমাজকে অপমানিত করেছেন। যেখানে বর্তমান সরকার কর্মক্ষেত্রে নারীদের সর্বোচ্চ মর্যাদা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতের উপর জোর দিয়ে যাচ্ছেন সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি জায়গায় থেকে একজন নারী শিক্ষককে এভাবে লাঞ্ছিত হতে হবে আমরা তা কোনভাবেই মেনে নিতে পারবো না।`

বক্তারা আরো বলেন, `আমরা অবাক হয়েছি এ ধরণের ন্যক্কারজনক কাজ করার পরেও ঐ কর্মচারী কিভাবে ক্যাম্পাসে আসা-যাওয়া করছে। তাকে আর এই ক্যাম্পাসে দেখতে চাই না, আমরা অতিদ্রুত তার বহিষ্কার চাই। এ রকম কুলাঙ্গার কর্মচারীর ক্যাম্পাসে থাকার কোন অধিকার নাই। আমাদের নিরাপত্তা এবং ক্যাম্পাসের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করার স্বার্থে তাকে ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত করা এখন সময়ের দাবি। শুধু বহিষ্কারই নয় তাকে যেন এমন শাস্তি দেয়া হয় যেন পরবর্তীতে কেউ আর এ ধরনের কাজ করার সাহস না পায়।`

মানববন্ধনে বক্তব্য প্রদান করেন, অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক, অধ্যাপক রোজিনা ইয়াসমিন লাকী, সহকারী অধ্যাপক ডা মোছা সোগরা বানু জুলি, প্রভাষক মাহফুজা আক্তার পাপড়ী, নিশাত, অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী সুরাইয়া জেবিন সেজুতি,শামীমা সহ আরো অনেকে। মানবন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের কয়েক শতাধিক সচেতন নারী শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে।

অমৃতবাজার/এসএস