ঢাকা, শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০ | ২৬ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ছয় বছরেও নামকরণ হয়নি নোবিপ্রবি’র মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্যের


নোবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ

প্রকাশিত: ০১:১০ এএম, ৩০ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার | আপডেট: ০১:১০ এএম, ৩০ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার
ছয় বছরেও নামকরণ হয়নি নোবিপ্রবি’র মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্যের

 

দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে স্থান পাওয়া ভাস্কর্যগুলো যেন শিক্ষার্থীদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে। ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা ভাস্কর্যগুলো তরুণ-তরুণীদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধ ও দেশকে জানার এবং চেনার ইচ্ছে তৈরি করছে।

কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে দেশের অন্যতম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) ভাস্কর্যটি উদ্বোধনের প্রায় ছয় বছর হতে চললেও  এখনো নাম করণ হয়নি।

 বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে সগৌরবে দাঁড়িয়ে থাকা ভাস্কর্যটি ২০১৩ সালের ১৬ ডিসেম্বর তৎকালীন উপাচার্য প্রফেসর সাইদুল হক উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনের সময় উপাচার্য নাম ঠিক করার প্রজ্ঞাপন দিলেও সেটি আর কাজে পরিণত হয়নি। উদ্বোধনের সময় সাময়িকভাবে ভাস্কর্যটির নাম দেয়া হয়েছিল `স্বাধীনতা ভাস্কর্য`। সেই অস্থায়ী নামের ওপর এখনও দাঁড়িয়ে আছে ভাস্কর্যটি।

 ভাস্কর্যটির নাম ঠিক করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরাসহ বিভিন্ন মহল দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছেন। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আশ্বাস দিলেও কোনও এক আজানা কারণে তা আর আলোর মুখ দেখছে না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের মোঃ রিয়াদ হোসেন বলেন, আমরা বিভিন্ন সময় এ ভাস্কর্যটির নামকরণের দাবি জানিয়েছি। আমরা যখনই প্রশাসনের কাছে যাই উনারা হবে বলে জানান । কিন্তু তার সাথে বাস্তবের কোন মিল পাচ্ছিনা।`

বিশ্ববিদ্যালয়ের এক প্রাক্তন শিক্ষার্থী জানান, মহাবিশ্বের প্রত্যেকটি জিনিসেরই একটি পরিচয় থাকে, যা দিয়ে নির্দিষ্ট করে তাকে চেনা যায়। কিন্তু আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত একটি ভাস্কর্য দীর্ঘসময় থেকে নামহীনভাবে পড়ে আছে। তার ওপর এই ভাস্কর্যটি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিতে তৈরি।  প্রশাসন আশা করি এর দ্রুত নামকরণ করে এর ঐতিহ্যকে সম্মান দেখাবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. দিদার-উল-আলম জানান ` ভাস্কর্যটির একটি নাম হওয়া উচিত। ইতোমধ্যে এর জন্য পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে এবং সবার কাছে ভাস্কর্যটির জন্য নাম চাওয়া হয়েছে, আশা করি খুব দ্রুত এর নামকরণ হয়ে যাবে। 

অমৃতবাজার/হাসিব/এএস