ঢাকা, সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কুবিতে ছাত্রলীগ নেতাসহ ৩ শিক্ষার্থী নেশাগ্রস্ত অবস্থায় ধরা


কুবি প্রতিনিধি:

প্রকাশিত: ০৯:০১ এএম, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৩:৫৯ পিএম, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
কুবিতে ছাত্রলীগ নেতাসহ ৩ শিক্ষার্থী নেশাগ্রস্ত অবস্থায় ধরা

 

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল থেকে ২ ছাত্রলীগ নেতাসহ ৩ শিক্ষার্থীকে নেশাগ্রস্ত অবস্থায় ধরা পড়েছে। একইসাথে তাদের কাছ থেকে বেশকিছু মাদকদ্রব্যও উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার (১৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় হলের ৫০৬ নং কক্ষ থেকে হল প্রশাসনের পরিচালিত অভিযানে মাদকসেবী ও মাদকদ্রব্যাদি পাওয়া যায়।

অভিযুক্ত তিন শিক্ষার্থী হলেন, বাংলা বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ও শাখা ছাত্রলীগের উপ-সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক জসীম উদ্দিন বিজয়; পরিসংখ্যান বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সজীব কুমার  কর; একই বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী খলিলুর রহমান শিবলু। তবে তাদের কেউই বঙ্গবন্ধু হলের বৈধ শিক্ষার্থী নন বলে জানা গেছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ মো. জিয়া উদ্দিন নিয়মিত হল পরিদর্শনের সময় ৫০৬ নাম্বার কক্ষ থেকে এইসব মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেন।

তিনি জানান, `আমি ৫০৬ নং কক্ষে ঢুকার সময় গাঁজার বাজে গন্ধ পাই। রুমে ঢুকামাত্র আবছা অন্ধকারে ধোঁয়ার মধ্যে কেউ এয়ারফ্রেশনার স্প্রে করে। রুমে সজীব, শিবলু ও বিজয়কে নেশাগ্রস্ত, অস্বাভাবিক অবস্থায় শুয়ে থাকতে দেখি।

একটি টেবিলের উপর বেশকিছু মাদক পড়ে থাকতে দেখি। তারপর পুরো কক্ষ সার্চ করে টেবিল, তোষক, ড্রয়ারসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে গাঁজা, একটি হাতুড়ি, ৩টি বন্ধ ফোন এবং নানাধরণের নেশাদ্রব্য আমরা উদ্ধার করি। এই কক্ষের বিরুদ্ধে আগেও বিভিন্ন অভিযোগ ছিলো।`

এদিকে মাদকসহ হাতেনাতে ধরা খাওয়ার পর ওই তিন শিক্ষার্থীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দিয়েছে হল প্রশাসন। এ বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ জানান, `অভিযান শেষে আমরা প্রক্টরিয়াল বডিকে বিষয়টি অবগত করি। একইসাথে ওই কক্ষটিকে সিলগালা করে দিয়েছি। আমরা তাদের আটক করতে পারি না। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ব্যবস্থা নিবে।`

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতা জসীম উদ্দিন বিজয় জানান, `আমি মাদকের সাথে জড়িত নই। আমি আমার রুম (৫০৮) থেকে পাশের রুমে (৫০৬) যাই এমনিতেই। তারপরই স্যার চলে আসেন।` এছাড়াও ছাত্রলীগ নেতা সজিব কুমার করকে একাধিকবার ফোন দেওয়া হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

জানতে চাইলে শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ জানান, `ঘটনার কথা শুনেই তাৎক্ষণিকভাবে আমরা সজিব কুমার করকে শাখা ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার এবং জসীম উদ্দিন বিজয়ের পদ স্থগিত করেছি। মাদকের ব্যাপারে আমরা সবসময় জিরো টলারেন্সে বিশ্বাসী। এ বিষয়ে যেকোনো অভিযানে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে সহযোগিতা করবো।`

এ বিষয়ে ঘটনাস্থলে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর নাসির হোসেন বলেন, `হল প্রশাসন থেকে আমরা লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিস্তারিত তদন্তসাপেক্ষে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আমরা প্রশাসনিকভাবে ব্যবস্থা নিবো।`

অমৃতবাজার/মাহফুজ/কেএসএস/এএস