ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ১ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিক্ষকদের কর্মবিরতিতে বিপাকে নোবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা


নোবিপ্রবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১০:০৬ এএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
শিক্ষকদের কর্মবিরতিতে বিপাকে নোবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

 

গত ১ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় হামলার শিকার হন বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ও আব্দুল মালেক উকিল হলের প্রভোস্ট ড. ফিরোজ আহমেদ।

হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত না হওয়ায় অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতির ঘোষণা দেন শিক্ষক সমিতি।

শিক্ষকদের অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির কারণে বেশ বিপাকে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। এতে করে ক্লাস না করাসহ নানা সমস্যায় আছেন শিক্ষার্থীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষার্থী বলেন `শিক্ষকদের কর্মবিরতির ৩য় দিন আজ। আমাদের ক্লাস,পরীক্ষা কিছুই হচ্ছে না।এতে করে আমরা একটা অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে আছি। আমরা অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের থেকে পিছিয়ে পড়ছি। একদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক মাত্র আবাসিক হল বন্ধ। আমরা হন্ন হয়ে বিভিন্ন মেসে ঘুরে বেড়াচ্ছি। আমরা চাই প্রশাসন দ্রুত ব্যবস্থা নিক যেনো আমাদের পড়ালেখার স্বাভাবিক পরিবেশ বজায় থাকে। `

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সাবেক শিক্ষার্থী বলেন ` শিক্ষকদের মধ্যেও রাজনীতি চলে। এতে করে বিশ্ববিদ্যালয়ের মান সম্মানে আঘাত আসছে। সামনে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা। বর্তমান অবস্থা কিছুটা নেতিবাচক প্রভাব ফেলেতে পারে।`

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সহকারী অধ্যাপক মো. নাসির উদ্দিন বলেন `আমরা চাই শিক্ষকের উপর হামলার বিচার হোক। শিক্ষার্থীদের কথা আমরা ভেবেছি। দরকার হলে তাদের অতিরিক্ত ক্লাস নিয়ে আমরা পুষিয়ে দিবো। কিন্তু আমরা এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি চাই না। আমরা দোষীদের শাস্তি চাই।

প্রসঙ্গত,  গত ১ সেপ্টেম্বর  শনিবার রাতে নোবিপ্রবি সালাম হলে ধূমপানকে কেন্দ্র ছাত্রলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম রবিন এবং সাধারণ সম্পাদক এস এম ধ্রুবর দুটি গ্রুপে সংঘর্ষ হয়। রবিবার রাতে একই ঘটনার জের ধরে আবার সংঘর্ষ হলে ঘটনায় গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করেন মালেক উকিল হলের প্রভোস্ট ড. ফিরোজ আহমেদ সহ কয়েকজন শিক্ষক। সংঘর্ষে শিক্ষার্থীদের আঘাতে গুরুতর আহত হয় ড. ফিরোজ আহমেদ। এছাড়া আঘাত পান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ জন শিক্ষক।

অমৃতবাজার/হাসিব/এএস