ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯ | ৫ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নুসরাত হত্যার বিচার চান কুবি শিক্ষার্থীরা


কুবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১১:১৬ পিএম, ১১ এপ্রিল ২০১৯, বৃহস্পতিবার
নুসরাত হত্যার বিচার চান কুবি শিক্ষার্থীরা

ফেনীর মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার প্রতিবাদ ও এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন সড়কে বিভিন্ন প্রতিবাদী ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড নিয়ে মানববন্ধন করেন তারা।

মানববন্ধনে যোগ দেওয়া ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিলো ‌‘এত ধর্ষণ-হত্যা কিভাবে সহ্য কর বাংলাদেশ?’, ‘বিবেক কবে জাগ্রত হবে?’, ‘আমার বোন মরল কেন, প্রশাসন জবাব চাই’, ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’, ‘ধর্ষক ও খুনিদের ফাঁসি চাই’ ইত্যাদি।

শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, নুসরাতকে স্পষ্ট ও পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার সঙ্গে যেসব কুলাঙ্গার জড়িত তাদের বেঁচে থাকার কোনো অধিকার নেই। এ ঘটনার সাথে জড়িত দোষীদের বের করে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মাজহারুল ইসলাম হানিফ, তরিকুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম, কুতুব উদ্দিন, আরিয়ান খান তন্ময়সহ আরও অনেকে। মানববন্ধন থেকে নুসরাত হত্যার দ্রুত বিচার না হলে কঠোর কর্মসূচিতে যাওয়ার হুমকি দেন কুবি শিক্ষার্থীরা।

প্রসঙ্গত, নুসরাত জাহান রাফি ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম শ্রেণির পরীক্ষার্থী ছিলেন। ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা বিভিন্ন সময়ে তাকে যৌন নিপীড়ন করে বলে অভিযোগ ওঠলে গত ২৭ মার্চ সোনাগাজী থানায় দায়ের করা মামলার প্রেক্ষিতে ওই অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এরপর গত ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে আলিম পর্যায়ের আরবি প্রথমপত্র পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসা কেন্দ্রে যান নুসরাত। এসময় তাকে কৌশলে একটি বহুতল ভবনে ডেকে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। সেখানে তার গায়ে দাহ্য পদার্থ দিয়ে আগুন দেওয়া হয়। বুধবার (১০ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টায় ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান নুসরাত। এ ঘটনায় দেশব্যাপী প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।

অমৃতবাজার/মাহফুজ/আরএইচ