ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ১০ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দুই ছাত্রকে ছুরিকাঘাতের প্রতিবাদে যবিপ্রবির মানববন্ধন


যশোর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০৭:৪০ পিএম, ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, রোববার
দুই ছাত্রকে ছুরিকাঘাতের প্রতিবাদে যবিপ্রবির মানববন্ধন

যশোর পৌর পার্কে ৬ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় স্থানীয় দুর্বৃত্তদের দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের দুই ছাত্র গুরুতর আহত হওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। রোববার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের আয়োজনে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

কর্মসূচিতে অনাকাঙ্খিত এ ঘটনার প্রতিবাদে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আনোয়ার হোসেন সমাজের নৈতিক অবক্ষয় ঠেকানোর আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, একজন টিনএজ বয়সের ছেলে যদি সিনিয়র ভাইদের এভাবে ছুরিকাঘাত করে, সেটা সমাজের অবক্ষয়ের উৎকৃষ্ট উদাহরণ। এই ধরনের অবক্ষয় থেকে বাঁচতে এদেরকে আমাদের ধরতে হবে। সংশোধন করতে হবে। বিচারের আওতায় আনতে হবে।

অধ্যাপক ড. মো: আনোয়ার হোসেন বলেন, বিচারের সময় যদি দেখা যায় অপরাধীরা টিনএজার, তাহলে তাদের সংশোধনের জন্য প্রশাসন এবং সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে। টিএনজার ছেলেমেয়েদের এটা থেকে বাঁচাতে হবে, তা না হলে সমাজ আরও খারাপের দিকে যাবে।

প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, যারা আমাদের ছাত্রদের আহত করেছে তাদের চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনতে হবে। বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে। এ রকম তুচ্ছ কারণে যদি টিনএজাররা আইন নিজের হাতে তুলে নেয়, তাহলে সমাজের অবক্ষয় ঠেকানো সম্ভব নয়। সঠিকভাবে বিচারের ব্যবস্থা না করলে দিনদিন এই প্রবণতা বাড়তেই থাকবে।

মানববন্ধনে আরও বক্তৃতা দেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সুব্রত বিশ্বাস, শেখ হাসিনা হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়রা আজমিরা এরিন, শহীদ মসিয়ূর রহমান হল ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা, যবিপ্রবির উপ-প্রচার সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন, ফার্মেসী বিভাগের শিক্ষার্থী আরমান আহমেদ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত ৬ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় যশোর শহরের পৌর পার্কে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের ছাত্র মাসুম বিল্লাহ ও শামীম হাসানকে দুর্বৃত্তরা ছুরিকাঘাত করে। তাদের মধ্য মাসুম বিল্লাহ গুরুতর আহত। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। মাসুম বিল্লাহের বাড়ি যশোর জেলার মণিরামপুরে আর শামীম হাসানের বাড়ি ঝিনাইদহের কোটচাদপুরে।

অমৃতবাজার/প্রণব/শাওন