ঢাকা, সোমবার, ২০ মে ২০১৯ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অরক্ষিত বেরোবি ক্যাম্পাসে বাড়ছে চুরি ছিনতাই


বেরোবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০৩:১৫ পিএম, ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শনিবার
অরক্ষিত বেরোবি ক্যাম্পাসে বাড়ছে চুরি ছিনতাই

 

নিরাপত্তা ব্যবস্থার অবনতি ঘটায় অরক্ষিত হয়ে পড়েছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি)। দিনের পর দিন বেড়েই চলছে বহিরাগতদের উৎপাতসহ চুরি, ছিনতাইয়ের মত ঘটনা। এসব বিষয়ে নজর দেওয়া বা উদ্যোগ নেওয়ার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন উদাসীন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ঈদুল আজহার ছুটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু হলের রিডিং রুমের ফ্যানসহ বেশ কয়েকটি রুমের ফ্যান চুরি হয়েছে। গরমে রিডিং রুমে বসে পড়াশুনা করার মত কোনো পরিবেশ নেই।

এছাড়া, গত কয়েকদিনে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মোট ৫ থেকে ৬টি সাইকেল চুরি হয়েছে। এদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডরমেটরিতে অবস্থানরত কয়েকজন আবাসিক শিক্ষক এবং কয়েকজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার ছেলেদের সাইকেল চুরির ঘটনা ঘটে। চলতি মাসের ১ তারিখ রাতে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন লালবাগ ও পার্কের মোড়ের মাঝামাঝি জায়গায় ছিনতাইয়ের শিকার হয় দুই শিক্ষার্থী।

এদিকে, ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের উৎপাত দিন দিন বেড়েই চলছে। শুক্রবার এবং শনিবার (সাপ্তাহিক ছুটি) এই দুই দিন বহিরাগতদের দখলে থাকে পুরো ক্যাম্পাস। প্রতিদিন বিকেল থেকে মধ্যরাত অবধি ক্যম্পাসে ভিড় জমায় বহিরাগতরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘ক্যাম্পাসে প্রায়ই বহিরাগতদের উৎপাত লক্ষ্য করা যায়। তাদের কাছে হেনস্থার শিকার হতে হয় সাধারণ শিক্ষার্থীদের। এসব বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বারবার অবগত করেও কোনো ফল পাওয়া যায় না।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক নেতা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ক্যাম্পাসে অবস্থান না করায় ভেঙে পড়েছে পুরো নিরাপত্তা ব্যবস্থা। কে, কোথায়, কখন কি করতেছে তা দেখার কেউ নেই। তা ছাড়া, প্রক্টরকে ক্যাম্পাসের নিরাপত্তার স্বার্থে সার্বক্ষণিক ক্যাম্পাসে অবস্থান করতে হয়। কিন্তু প্রক্টরকে ক্যাম্পাসে খুব কম সময়ই পাওয়া যায়। তার নামে শিক্ষকদের ডরমেটরিতে একটি ফ্ল্যাট বরাদ্দ থাকলেও তিনি সেটিতে থাকেন না। সেটি ফাঁকাই পড়ে থাকে। এছাড়া, ক্যাম্পাসে বিশেষ মহড়া দেন না প্রক্টর। উপাচার্য এবং প্রক্টরের এমন উদাসীনতায় পুরো ক্যাম্পাস অরক্ষিত হয়ে পড়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘ক্যাম্পাস থেকে সাইকেল চুরি এবং বহিরাগতদের দ্বারা শিক্ষার্থীরা ছিনতাইয়ের শিকার হওয়ার ঘটনা শুনেছি। ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তায় গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। নিরাপত্তার স্বার্থে আমাদের আরো জনবল দরকার।’

অমৃতবাজার/ইভান/শাওন