ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

রাবি অধ্যাপক অমৃতলাল বালা আর নেই


রাবি প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৬:২০ পিএম, ১৬ এপ্রিল ২০১৮, সোমবার
রাবি অধ্যাপক অমৃতলাল বালা আর নেই

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) বাংলা বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক অমৃতলাল বালা মারা গেছেন। রোববার দিবাগত রাত ২টায় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর। সোমবার বেলা তিনটায় রাজশাহীতে তার শেষকৃত্য হয়।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ড. ঊষা রাণী সরকার, মেয়ে অদিতি বিশ্বাস, ছেলে অর্ঘ্যকমল বিশ্বাস ছাড়াও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন অমৃতলাল বালা। অমৃতলাল বালার মৃত্যুতে তার বিভাগের সহকর্মীরা গভীর দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

অমৃতলাল বালা গত বছরের জুলাই মাস থেকে অবসর প্রস্তুতিকালীন ছুটি কাটাচ্ছিলেন। তিনি ডায়াবেটিস ও কিডনিজনিত রোগে ভুগছিলেন।

১৯৫২ সালের ১ জানুয়ারি অমৃতলাল বালা খুলনায় জন্মগ্রহণ করেন। ড. অসিতকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়ের তত্ত্বাবধানে ‘আলওলের কাব্যে হিন্দু-মুসলিম সংস্কৃতি’ শিরোনামে অভিসন্দর্ভ রচনা করেন। ১৯৮৯ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৯১ সালে অভিসন্দর্ভটি বাংলা একাডেমি থেকে গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয়। ওই বছরই তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন।

২০০৪ সালে তিনি অধ্যাপক পদে উন্নীত হন। ২০১৫ সালের ১৬ মে থেকে ২০১৭ সালের ২৯ জুন পর্যন্ত তিনি বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। তার গবেষণামূলক গ্রন্থের সংখ্যা আট। এছাড়া প্রচুর গবেষণামূলক প্রবন্ধ লিখেছেন তিনি। সম্পাদক ছিলেন গবেষণা পত্রিকা সাহিত্যিকীর। তার তত্ত্বাবধানে পিএইচডি ডিগ্রি পেয়েছেন ছয়জন, এমফিল ডিগ্রি পেয়েছেন তিনজন গবেষক।

অমৃতলাল বালার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ ‘পদ্মাবতী সমীক্ষা’ (১৯৯৭), ‘ম্যাকবেথ বীক্ষণ’ (১৯৯৮), ‘মশাররফ মানস ও জমীদার দর্পণ’ (২০০১), ‘দৌলতকাজী কবি ও কাব্য’ (২০০১), ‘রবীন্দ্রনাথ ও বাংলার লোকসংস্কৃতি’ (২০০৩) প্রভৃতি।

এদিকে অধ্যাপক বালার মৃত্যুতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহাসহ তার সহকর্মী ও ছাত্ররা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তারা প্রয়াতের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

অমৃতবাজার/শিহাবুল/শাওন