ঢাকা, সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০১৭ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

বেরোবিতে ভর্তিচ্ছুুু হাজারো শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন এখন মরিচিকা!


ইভান চৌধুরী, বেরোবি

প্রকাশিত: ০৬:২৮ পিএম, ১৩ নভেম্বর ২০১৭, সোমবার | আপডেট: ০৬:৫৭ পিএম, ১৩ নভেম্বর ২০১৭, সোমবার
বেরোবিতে ভর্তিচ্ছুুু হাজারো শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন এখন মরিচিকা!

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৭-১৮ সেশনে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার টেলিটকের যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে রেজিস্ট্রেশন করতে পারেনি হাজারও শিক্ষার্থী। ফলে উচ্চ শিক্ষা অর্জন করার স্বপ্ন এখন দুঃস্বপ্নে পরিনত হয়েছে তাদের। টেলিটকের যান্ত্রিক ত্রুটিকেই দায়ী করছেন আবেদন না করতে পারা হাজারো ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৭-১৮ সেশনে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে ইচ্ছুক এক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ইমরান নাজির পঞ্চগড় থেকে মোবাইল ফোনে বলেন, আমার এবার সেকেন্ড টাইম ছিল। আমি অন্য কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স না পাওয়ায় আমার শেষ ভরসা ছিলো বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্তুু টেলিটককের নেটওয়ার্ক জ্যামের কারনে আমি কোন ইউনিটেই রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে পারিনি। এখন তো আমাকে আর পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে দেয়া হবে না। আমার এতোদিনের স্বপ্ন এভাবে ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যাবে আমি কখনো ভাবতে পারিনি’।

স্বপ্না শিল নামের আরেক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী জানান, ‘আমি সাড়ে দশটার সময় রেজিস্ট্রেশনের জন্য আবেদন করার পরও রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সফল হয়নি। রাত ১২টার সময় ‘সময় শেষ’ বলে আমাকে ফিরতি এসএমএস দেয়া হয়। এখন রেজিস্ট্রেশনের জন্য সময় বাড়ানো না হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির শেষ সুযোগটি একেবারেই হারিয়ে ফেলব।’

ইমরান নাজির ও স্বপ্নার মত এমন হাজারো শিক্ষার্থী টেলিটকের যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য রেজিস্ট্রেশনই করতে পারেনি। তারা অভিযোগ করেন, রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া ২০শে সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়ে ১০ই নভেম্বর রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত চালু থাকার কথা থাকলে ১০ই নভেম্বর রাত আটটার পর থেকেই বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই আবেদন করলেও কোন ফিরতি এসএমএস না এসে রাত ১২টার পর ‘সময় শেষ’ বলে ফিরতি এসএমএস পাঠানো হয়েছে। অনেকের পিন কোড দেওয়ার পরে টাকা না কাটার কারণে তাদের আবেদন সম্পন্ন হয়নি। অথচ নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার কয়েক ঘন্টা আগে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে তাদের অভিযোগ।

এ দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা বিষয়টি বিবেচনার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন। যান্ত্রিক ত্রুটির বিষয়টি বিবেচনা করে আবেদনের সময়সীমা বাড়ানোর আবেদন জানিয়েছেন অনেক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী এবং তাদের অবিভাবকগণ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ বলেন, শিক্ষার্থীদের অবহেলা কারণেই এমন হয়েছে। কেননা তারা পর্যাপ্ত সময় পাওয়া সত্ত্বেও শেষ সময়ে অনেকেই রেজিস্ট্রেশন করার কারণে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সমস্যা দেখা দেয়। এখন আর রেজিস্ট্রেশনের সময় বাড়ানো হবে না বলেও জানান তিনি।

অমৃতবাজার/ইভান/মিঠু

Loading...