ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ইউএস-বাংলায় নতুন উড়োজাহাজ


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৪৫ এএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার
ইউএস-বাংলায় নতুন উড়োজাহাজ

যাত্রীদের আরামদায়ক সেবা দেওয়ার জন্য বহরে আরো একটি অত্যাধুনিক ব্যান্ডনিউ এটিআর ৭২-৬০০ উড়োজাহাজ যুক্ত করেছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস। এ নিয়ে বিমান সংস্থাটির উড়োজাহাজের সংখ্যা দাঁড়াল ১৩টি, যা বেসরকারি এয়ারলাইনসগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। ৭২টি আসনের উড়োজাহাজটি দিয়ে অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট বাড়ানো হবে বলে জানা গেছে।

বুধবার (২৩ জানুয়ারি) বিকেল ৪টা ৪০ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উড়োজাহাজটি অবতরণ করে। এটি গ্রহণ করেন ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের উপদেষ্টা ক্যাপ্টেন সিকদার মেজবাহউদ্দিন আহমেদ।

ইউএস বাংলার কর্মকর্তারা জানান, ফ্রান্সের ফ্র্যান্কাজল এয়ারপোর্ট থেকে মিসর ও ওমান হয়ে নতুন সংযোজিত এয়ারক্রাফটটি হযরত শাহজালালে অবতরণ করে।

১৭ জুলাই ২০১৪ দুটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে ইউএস-বাংলা ঢাকা থেকে যশোরে উদ্বোধনী ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে। নতুন যুক্ত হওয়া এটিআর ৭২-৬০০সহ বর্তমানে ইউএস-বাংলার বিমানবহরে মোট ১৩টি এয়ারক্রাফট রয়েছে, যার মধ্যে চারটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০, তিনটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ ও ছয়টি এটিআর ৭২-৬০০।

আগামী জুন মাসের মধ্যে ব্র্যান্ডনিউ আরো চারটি এটিআর ৭২-৬০০ এয়ারক্রাফট ইউএস-বাংলার বিমানবহরে যুক্ত করে অভ্যন্তরীণ বিমান পরিবহনকে আরো বেশি শক্তিশালী নেটওয়ার্কের আওতায় নিয়ে আসার পরিকল্পনা আছে বলে জানালেন ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের উপদেষ্টা ক্যাপ্টেন সিকদার মেজবাহউদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘যাত্রীদের নিরাপত্তা ও আনন্দময় ভ্রমণই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য। এ ছাড়া ভবিষ্যত্ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে যাত্রীদের সর্বোচ্চ সেবা ও নিরাপত্তা প্রদান করে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসকে একটি অন্যতম শীর্ষ দেশীয় এবং আঞ্চলিক এয়ারলাইনস হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে দৃঢ়প্রত্যয় ব্যক্ত করছি।’

বর্তমানে অভ্যন্তরীণ সব রুটসহ আন্তর্জাতিক রুটে কলকাতা, চেন্নাই, মাস্কাট, দোহা, কুয়ালালামপুর, সিঙ্গাপুর, ব্যাংকক ও গুয়াংজুতে নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনা করে আসছে।

ষষ্ঠ এটিআর ৭২-৬০০ এয়ারক্রাফটটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করার সময় ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস ও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অমৃতবাজার/আরইউ