ঢাকা, শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিমান দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণ বেড়ে ১৬০০০০ ডলার


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৯:৫০ পিএম, ২৬ আগস্ট ২০১৯, সোমবার | আপডেট: ০৯:৫১ পিএম, ২৬ আগস্ট ২০১৯, সোমবার
বিমান দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণ বেড়ে ১৬০০০০ ডলার

 

বিমান দুর্ঘটনায় কেউ মারা গেলে তার পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে এক লাখ ৬০ হাজার ডলার দিতে হবে। আকাশপথে পরিবহন (মন্ট্রিল কনভেনশন, ১৯৯৯) আইন ২০১৯ খসড়ায় এমন বিধানই রাখা হয়েছে।

সোমবার (২৬ আগস্ট) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

তিনি বলেন, আকাশপথে পরিবহন আইন-২০১৯ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন হয়েছে। উড়োজাহাজের যাত্রীদের অধিকার সুরক্ষার জন্য এই আইনটি করা হচ্ছে। আগে এ নিয়ে দেশে কোনও আইন ছিল না। ফলে নেপালে উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় হতাহতদের পরিবার কম ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। যদি মন্ট্রিল কনভেনশন অনুযায়ী আমাদের আইন থাকতো, তাহলে যাত্রীর পরিবার ক্ষতিপূরণ পেতো কয়েক গুণ বেশি। একেকজন কমপক্ষে এক লাখ ৬০ হাজার ডলার করে পেতো। এ বিষয়টি মাথায় রেখেই যাত্রীদের সুরক্ষা দিতে আইনটি করা হচ্ছে।

তিনি জানান, এ আইনে মন্ট্রিল কনভেনশন ১৯৯৯ অনুযায়ী কোনও ফ্লাইটে যাত্রী নিহত হলে ক্ষতিপূরণ আদায়ের পাশাপাশি যাত্রী আঘাতপ্রাপ্ত হলে এবং লাগেজ হারিয়ে গেলেও ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিধান রাখা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, কোনও বিমান কোম্পানী আইনটি ভঙ্গ করলে অর্থাৎ যাত্রীর মৃত্যু, আঘাতপ্রাপ্ত হওয়া কিংবা লাগেজ হারিয়ে যাওয়ার পরেও উড়োজাহাজ কর্তৃপক্ষ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ক্ষতিপূরণ দিতে অস্বীকার করলে সেই কোম্পানির বিরুদ্ধে এই আইনের পৃথক ধারা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে সরকার। সেক্ষেত্রে মন্ট্রিল কনভেনশন ১৯৯৯ অনুযায়ী যাত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় যাত্রীপ্রতি এক লাখ ৪০ হাজার ডলার করে জরিমানা করা হবে ওই উড়োজাহাজ কোম্পানিকে। এই টাকা আদায় করবে সরকার। পরে তা যাত্রীকে দেওয়ার ব্যাপারে সরকার সিদ্ধান্ত নেবে। এছাড়া ব্যাগ হারিয়ে যাওয়ার ঘটনায় ক্ষতিপূরণ দিতে অস্বীকার করলে সংশ্লিষ্ট উড়োজাহাজ কোম্পানির কাছ থেকে প্রতিকেজির জন্য ৭০ ডলার করে জরিমানা আদায় করবে সরকার।

আইন বাস্তবায়নের ফলে উড়োজাহাজে ভাড়া বাড়বে কিনা—এ প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ‘বিমান ভাড়া বাড়বে না। কারণ ক্ষতিপূরণের এই টাকা বিমান কর্তৃপক্ষ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির কাছ থেকে নেবে।’

মন্ত্রিসভায় চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য উন্নয়ন নীতিমালা-২০১৯ এর খসড়ার অনুমোদন হয়েছে। এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, রফতানি পণ্যের ক্ষেত্রে চামড়া বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী দ্বিতীয় খাত। ২০২৪ সাল নাগাদ আশা করছি ৫ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি করতে সক্ষম হবো। এই টার্গেট নিয়ে কাজ করছি। এই নীতিমালার আওতায় শিল্পমন্ত্রীর নেতৃত্বে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের উন্নয়ন নীতিমালা পরিষদ নামে ৪১ সদস্যের একটি পরিষদ গঠন হবে। আর শিল্প সচিবের নেতৃত্বে চামড়া এ চামড়াজাত পণ্যের নীতিমালা বাস্তবায়ন পরিষদ থাকবে। এর সদস্য সংখ্যা ২০ জন।

এই নীতিমালার আলোকে ট্যানারি শিল্প মালিকদের ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে সুবিধা হবে। প্রণোদনা পাওয়ার ক্ষেত্রে সুবিধা হবে। চামড়া শিল্পের উন্নত পরিবেশ নিশ্চিত করা হবে। পণ্য উৎপাদনে আন্তর্জাতিক মান বজায় রাখা সহজ হবে। দক্ষ ও কার্যকর সেক্টর গড়ে ওঠার ক্ষেত্রে সহায়ক হবে।

অমৃতবাজার/এএস