ঢাকা, শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নতুন করে আর ‘ডেমু ট্রেন’ কেনা হবে না: প্রধানমন্ত্রী


অমৃতবাজার রিপোর্ট 

প্রকাশিত: ০৬:৩০ পিএম, ১৬ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার
নতুন করে আর ‘ডেমু ট্রেন’ কেনা হবে না: প্রধানমন্ত্রী

 

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজেল ইলেকট্রিক মাল্টিপল ইউনিট (ডেমু) ট্রেন কিনতে নিষেধ করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘এর আগে কেনা ডেমু ট্রেনগুলো যেহেতেু যাত্রীদের উপকারে আসেনি এবং অনেকগুলো নষ্ট হয়ে আছে। তাই নতুন করে এই ট্রেন কেনা হবে না।’

বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক এবং ঢাকার মধ্যে শাটল ট্রেন চালুর জন্য ডেমু সংগ্রহ শীর্ষক একটি প্রকল্প উপস্থাপন করা হলে এ প্রেক্ষিতে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

আজ মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির একনেক সভায় তিনি ডেমু ট্রেন না কেনার এ নির্দেশ দেন। এ সময় তিনি আরও বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। এ কথা জানিয়েছেন- পরিকল্পনা সচিব নুরুল আমিন।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক পরবর্তী ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনা সচিব জানান, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- প্রকল্পটি সংশোধন করে অন্য কোনো ট্রেন কিনতে হবে। তবে তিনি ঢাকা থেকে কালিয়াকৈর পর্যন্ত ননস্টপ ট্রেন সার্ভিস চালু এবং অন্যান্য রুটে ট্রেনগুলো যাতে স্টেশন ধরে যায় সে ব্যবস্থা করারও নির্দেশ দেন।

পরিকল্পনা সচিব আরও জানান, প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারকে পরিকল্পিতভাবে সাজাতে একটি মাস্টারপ্ল্যান তৈরির জন্য কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া আলাদাভাবে জেলা প্রশাসনকে আরও একটি মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করতে বলা হয়েছে।

এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আগে মাস্টারপ্ল্যান হবে তারপরই উন্নয়ন প্রকল্প নিতে হবে। সেসব প্রকল্পের মানসম্মত বাস্তবায়ন এবং যেখানে-সেখানে বিল্ডিং তৈরি করা যাবে না। প্রাকৃতিক দুর্যোগের হাত থেকে কক্সবাজারকে রক্ষা করতে ঝাউবন সৃজনের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।’

পরিকল্পনা সচিব জানান, ‘কালিয়াকৈরে স্থাপিতব্য বঙ্গবঙ্গু হাইটেক পার্কে খেলাধুলা, বিনোদন এবং শপিংমল তৈরির নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া প্রত্যেক উপজেলায় একটি কওে মিনি স্টেডিয়াম তৈরি করতে বলেছেন। সেসব স্টেডিয়াম কোন স্কুল, কলেজ বা মাদ্রাসার মাঠে নয়, আলাদা স্থানে, প্রয়োজনে উপজেলার বাইরে কোন স্থানে স্টেডিয়ামগুলো নির্মাণ করতে হবে। এসব স্টেয়িামের একদিকে গ্যালারি তৈরি করতে হবে। বাকি তিন দিক খোলা রাখতে হবে। যাতে মাঠের ভেতর কি হচ্ছে তা সাধারণ মানুষ দেখতে পারেন।’

একনেক সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও কর্মকর্তারা।

অমৃতবাজার/এএস