ঢাকা, বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯ | ১১ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আমদানি নিষিদ্ধ হচ্ছে ২১ পণ্য


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৪:১০ পিএম, ০৬ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার
আমদানি নিষিদ্ধ হচ্ছে ২১ পণ্য

নতুন আমদানি নীতিতে ২১ পণ্য আমদানি নিষিদ্ধের পাশপাশি বেশ কিছু নতুন পণ্য আমদানির সুযোগ সৃষ্টি করা হয়েছে।

২১ ক্যাটাগরির পণ্য আমদানি নিষিদ্ধ করে ‘আমদানি নীতি ২০১৮-২০২১’ অনুমোদন দিয়েছে সরকার।

নতুন আমদানি নীতিমালায় যে ২১ ক্যাটাগরির পণ্য আমদানি নিষিদ্ধ করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- চিংড়ি মাছ, জীবিত শূকর ও শূকরজাত সব ধরনের পণ্য, পপি সিড ও পোস্ত দানা, ঘাস, ওয়াইন লিজ ও আরগোল, ঘন চিনি, কৃত্রিম সরিষার তেল, সেকেন্ডারি বা সাব-স্ট্যান্ডার্ন্ড কোয়ালিটি বা নিম্নমানের পণ্য অথবা পুরোনো, ব্যবহৃত, রিকন্ডিশন্ড পণ্য বা কারখানায় বাতিলকৃত বা স্টক লটের পণ্য, রিকন্ডিশন্ড অফিস ইক্যুইপমেন্ট (ফটোকপিয়ার, টাইপরাইটার, টেলেক্স, ফোন, ফ্যাক্স, পুরনো কম্পিউটার ও কম্পিউটার সামগ্রী ও পুরনো ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী), সব ধরনের শিল্প স্লাজ ও স্লাজ দিয়ে তৈরি সার ও যেকোনো সামগ্রী, সব ধরনের বর্জ্য পদার্থ।

সম্প্রতি অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে আমদানি নীতি ২০১৮-২০২১ তিন বছর মেয়াদি এ আমদানি নীতি উপস্থাপন করা হলে তা পর্যালোচনা শেষে অনুমোদন দেওয়া হয়।

প্রতি তিন বছরের জন্য সরকার আমদানি নীতি প্রণয়ন করে। বিদ্যমান ‘আমদানি নীতি আদেশ ২০১৫-২০১৮’ এর মেয়াদ গত বছরের ৩০ জুন শেষ হয়েছে। কিন্তু নতুন আইন প্রণীত না হওয়ায় বিধান অনুযায়ী সেটিই এতদিন বিদ্যমান ছিল। নতুন নীতিমালার মেয়াদ ২০২১ সালের ৩০ জুন শেষ হবে।

শর্তসাপেক্ষে বা নিয়ন্ত্রিত আমদানিযোগ্য পণ্য হিসেবে ১২টি ক্যাটাগরির পণ্য চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে আছে- ফার্নেস অয়েল, সাড়ে চার সেন্টিমিটারের কম ব্যাস বা দৈর্ঘ্যের মাছ ধরার কারেন্ট জাল, পাঁচ বছরের পুরোনো অধিক গাড়ি আমদানি না করা, যে দেশে গাড়ি তৈরি করা হয়েছে সে দেশ থেকেই আমদানি করতে হবে, তিন বছরের বেশি পুরনো ও ১৬৫ সিসির ঊর্ধ্বে সব ধরনের মোটরসাইকেল এবং এলএনজি ও লিকুইফাইড প্রপেন ও বিউটেনস ছাড়া পেট্রোলিয়াম গ্যাস ও অন্যান্য গ্যাসীয় হাইড্রো-কার্বন, পেট্রোলিয়াম কোক ও পেট্রোলিয়াম বিটুমিন ছাড়া পেট্রোলিয়াম তেলের রেসিডিউ আমদানি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

তবে এখন থেকে আমদানি করা যাবে বেসামরিক বিমান ও হেলিকপ্টার। এ ছাড়া শর্ত সাপেক্ষে আমদানি করা যাবে ১২ ক্যাটাগরির পণ্য। তবে ঘন চিনি, পলিথিন বা পলিথিন ব্যাগ, টু-স্ট্রোক ইঞ্জিন, চিংড়ি মাছ ইত্যাদি ২১ ক্যাটাগরির পণ্যের আমদানি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

অন্যান্য পণ্যের মধ্যে ২৫ বছরের বেশি পুরোনো সমুদ্রগামী জাহাজ, অয়েল ট্যাংকার ও মৎস্য ট্রলার আমদানি করা যাবে না।

অমৃতবাজার/পিকে