ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ইউএস-বাংলার বিমান বহরে যুক্ত হলো ৮ম এয়ারক্রাফট


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৪:২৩ পিএম, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার
ইউএস-বাংলার বিমান বহরে যুক্ত হলো ৮ম এয়ারক্রাফট

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বহরে ৪র্থ ড্যাশ৮-কিউ৪০০ এয়ারক্রাফট মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, মঙ্গলবার সকাল ১০টায় ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরন করে। আনুষ্ঠানিকভাবে উড়োজাহাজটি গ্রহণ করেন ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব ইমরান আসিফ।

এয়ারক্রাফট রিসিভিং অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের নির্বাহী পরিচালক জনাব এম জি তৌহিদ পরিচালক ফ্লাইট অপারেশন জনাব মসিউল আজম, পরিচালক কাস্টমার সার্ভিস জনাব এ কে এম জুনায়েদ, জিএম কাস্টমার সার্ভিস জনাব ইমরান আহমেদ, জিএম অপারেশন জনাব জুলফিকার আলী, জিএম মার্কেটিং সাপোর্ট এন্ড পাবলিক রিলেশন মোঃ কামরুল ইসলাম, জিএম প্রকিউরমেন্ট জনাব তোফিকুল হকসহ এয়ারলাইন্সের উর্ধতন কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ।

কানাডার মন্ট্রিল থেকে ইউএস-বাংলার ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতান, ক্যাপ্টেন লুৎফর রহমান ও ফার্স্ট অফিসার মারুফ আহমেদ নতুন সংযোজিত ফ্লাইটটি পরিচালনা করে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরন করান। অবতরনের পর ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের সিইও ইমরান আসিফ ক্যাপ্টেনদেরকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এরপর এয়ারলাইন্সের সার্বিক উন্নতির জন্য দোয়া পরিচালনা করা হয়।

নতুন যুক্ত হওয়া ড্যাশ৮-কিউ৪০০ এয়ারক্রাফটটিতে ৭৬টি ইকোনমি ক্লাসের আসন রয়েছে। বহরে যুক্ত হওয়া এয়ারক্রাফট দিয়ে অভ্যন্তরীণ ও আঞ্চলিক রুটে ফ্লাইট সংখ্যা বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে।

১৭ জুলাই ২০১৪ তারিখে দু’টি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে ইউএস-বাংলা ঢাকা থেকে যশোরে উদ্বোধনী ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে। নতুন যুক্ত হওয়া ড্যাশ৮-কিউ৪০০সহ বর্তমানে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বহরে মোট আটটি এয়ারক্রাফট রয়েছে যার মধ্যে চারটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ও চারটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০।

“ফ্লাই ফাস্ট-ফ্লাই সেফ” স্লোগান নিয়ে যাত্রা শুরু করা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স, অধিকতর আন্তর্জাতিক রুট সম্প্রসারনের লক্ষ্যে খুব শীঘ্রই বিমান বহরে অধিক সংখ্যক এয়ারক্রাফট যুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স বর্তমানে প্রতি সপ্তাহে প্রায় ৩০০টির অধিক অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করে থাকে। যাত্রা শুরু করার পর সাড়ে তিন বছরে প্রায় ৩৬ হাজার ফ্লাইট পরিচালনা করেছে, যা বাংলাদেশে বিমান চলাচলের ইতিহাসে একটি রেকর্ড। যাত্রা শুরুর এক বছরের মধ্যে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে সকল চালু বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ফ্লাইট পরিচালনা করে স্বল্পতম সময়ে অভ্যন্তরীণ আকাশপথের যোগাযোগ ব্যবস্থাকে করেছে সূদৃঢ়।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স যাত্রা শুরুর দু’বছরের মধ্যে ১৫ মে ২০১৬ তারিখে ঢাকা-কাঠমান্ডু রুটে ফ্লাইট পরিচালনার মধ্যেমে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে যাত্রা শুরু করে। আন্তর্জাতিক রুট পরিচালনা শুরুর পর এক বছরের মধ্যেই কাঠমান্ডু ছাড়াও ঢাকা থেকে কলকাতা, মাস্কাট, দোহা, কুয়ালালামপুর, সিঙ্গাপুর, ব্যাংকক রুটে নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনা করে আসছে। এছাড়া চট্টগ্রাম থেকে কলকাতা, মাস্কাট ও দোহা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। খুব শীঘ্রই চীনের গুয়াংজুহতে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করতে যাচ্ছে। এছাড়া আবুধাবী, জেদ্দা, রিয়াদ, দাম্মাম, দিল্লী, চেন্নাই রুটে ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা রয়েছে ইউএস-বাংলার।

অমৃতবাজার/শাওন