ঢাকা, রোববার, ২৮ মে ২০১৭ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

‘বিদেশি সাহায্যপুষ্ট প্রতিষ্ঠান দিয়ে এসডিজি অর্জন সম্ভব নয়’


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৪:৫৯ পিএম, ১৮ মে ২০১৭, বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৫:২২ পিএম, ১৮ মে ২০১৭, বৃহস্পতিবার
‘বিদেশি সাহায্যপুষ্ট প্রতিষ্ঠান দিয়ে এসডিজি অর্জন সম্ভব নয়’

এসডিজি বাস্তবায়ন নাগরিক প্লাটফর্মের আহবায়ক ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য আগামী বাজেট নিয়ে মন্তব্য করে বলেন, বিদেশি সাহায্যপুষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো দিয়ে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জন সম্ভব নয়। তাই আগামী বাজেটে একটি ট্রাস্ট ফান্ড গঠনেরও পরামর্শ দেন তিনি।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে বাংলাদেশ’ বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোর ভূমিকা শীর্ষক সম্মেলনে তিনি এই কথা বলেন।

সম্মেলনটি যৌথভাবে আয়োজন করেছে এনজিও বিষয়ক ব্যুরো এবং এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্লাটফর্ম, বাংলাদেশ।

ড. দেবপ্রিয় বলেন, এসডিজি বাস্তবায়নে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে যদি এগিয়ে নিতে হয় তাহলে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলো সেই কাজটি করতে পারে। যদিও সরকারের কাছে এই উন্নয়ন সংস্থাগুলোর সঠিক কোনো হিসাব নেই। রাষ্ট্রবহির্ভূত এসব উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানগুলোই সামগ্রিকভাবে এসডিজি বাস্তবায়নে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে।

তিনি বলেন, এসব প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য আগামীর বাজেটে ১০০ কোটি টাকার একটি ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করা যেতে পারে। যার মাধ্যমে এসডিজির অসম্পন্ন কাজগুলো এগিয়ে নেওয়া সম্ভব হয়।

সম্মেলনে পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) চেয়ারম্যান ড. কাজী খলিকুজ্জামান আহমাদ বলেন, দেশের পানির প্রবাহে যদি নিজস্ব নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা না থাকে তবে এসডিজি বাস্তবায়ন সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, এসডিজি বাস্তবায়ন করতে হলে দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী বিশেষকরে প্রতিবন্ধী, দলিত শ্রেণি, হাওরবাসী, হিজড়া এবং উপকূলীয় এলাকার মানুষগুলোকে এগিয়ে আনতে হবে। আর এর জন্য বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে একত্রে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, পিকেএসএফ ইতোমধ্যে ৫০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করেছে। যা এসডিজি বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখছে। তবে আরও তহবিল গঠনের প্রয়োজন রয়েছে। বাজেটে ১০০ কোটি টাকার ফান্ড না হয়ে সেটা ১ হাজার কোটি টাকার ফান্ড হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

মুলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিপিডি ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি এসডিজি বাস্তবায়ন সংক্রান্ত নানা দিক তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে একটি টেকসই আর্থিক ব্যবস্থাপনার সুযোগ নিতে হবে। প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে। সরকারের অংশীদারিত্ব বৃদ্ধি করতে হবে। গুনগত তথ্য-উপাত্ত সরবরাহের ক্ষেত্রে আরও সংস্কার প্রয়োজন বলে উল্লেখ করেন তিনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসডিজির মুখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, এসডিজি বাস্তবায়নে সরকারি সংস্থাগুলোর পাশাপাশি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোর ভূমিকা অনেক বেশি।

তিনি আরও বলেন, এই বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোর প্রত্যেককে একটি করে লক্ষ্য ঠিক করে দেওয়া উচিত। এতে করে কত সময়ে প্রতিষ্ঠানগুলো কতটুকু কাজ সম্পন্ন করতে পারল তার হিসাব থাকবে।

ট্রাস্ট ফান্ড গঠন নিয়ে তিনি বলেন, এবারের বাজেটে এই ধরণের ট্রাস্ট ফান্ড গঠন সম্ভব হবে না। তবে বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্তৃপক্ষকে অবিহিত করা হবে।

অমৃতবাজার/ইকরামুল
 

Loading...