ঢাকা, সোমবার, ০১ জুন ২০২০ | ১৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পাপিয়া কেলেঙ্কারি: বাদ পড়ছেন নাজমা-অপু


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৩৮ পিএম, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার
পাপিয়া কেলেঙ্কারি: বাদ পড়ছেন নাজমা-অপু

যুবমহিলা লীগের সভাপতি আজমা আখতার ও সাধারণ সম্পাদক অপু উকিলের পদে থাকা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি তাদের অনুসারী হিসেবে পরিচিত শামীম নুর পাপিয়ার বিভিন্ন কেলেঙ্কারি প্রকাশ পাওয়ায় এই যুগলের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

দীর্ঘ দুই দশক ধরে আওয়ামী যুবমহিলা লীগে একচ্ছত্র আধিপত্য ছিল নাজমা আখতার ও অপু উকিলের। একদম শুরু থেকেই দলটির নেতৃত্বে ছিলেন তারা। তবে, তাদের আনুসারী ও যুবমহিলা লীগের সদ্য বহিষ্কৃত নেত্রী শামীমা নুর পাপিয়া গ্রেফতার হওয়ার পর তাদের নেতৃত্বে থাকা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের শীর্ষ স্থানীয় কয়েকজন নেতা গণমাধ্যমকে জানান, খুব শিগগিরই যুবমহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আখতার ও সাধারণ সম্পাদক অপু উকিলকে তাদের পদ থেকে অপসারণ করা হবে এবং জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে দলটির নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন করা হবে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কাজী জাফরুল্লাহ বলেন, খুব শিগগিরই যুবমহিলা লীগের নতুন কমিটি গঠন করা হবে। আগামী এক মাসের মধ্যে কাউন্সিলের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠন করা হবে।

আওয়ামী লীগের কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা জানান, বহিষ্কৃত যুব মহিলা লীগ নেত্রী শামীমা নুর পাপিয়ার বিভিন্ন কেলেঙ্কারির ব্যাপারে জানতে পেরে অত্যন্ত রুষ্ট হয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সূত্র জানায়, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের সভায় এই ব্যাপারে আলোচনা হয়। সভায় যুবমহিলা লীগের বর্তমান কমিটি ভেঙে দিয়ে যত দ্রুত সম্ভব নতুন কমিটি গঠন করার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে পরামর্শ দেন দলের সিনিয়র নেতারা। এমনকি, যুবমহিলা লীগ বিলুপ্ত করার পরামর্শও দেওয়া হয়।

সূত্র আরও জানায়, সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আইন বহির্ভূত কাজের সাথে যারা জড়িত আছে তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেবো আমি।

আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীন সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরেই যুবমহিলা লীগের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সদ্য বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক শামীমা নুর পাপিয়ার গ্রেফতার হওয়ার আগ পর্যন্ত উপযুক্ত কোনো তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

যোগাযোগ করা হলে নাজমা আখতার ও অপু উকিল জানান, আওয়ামী লীগ সভাপতির কাছে কাউন্সিলের সম্ভাব্য তারিখও জানতে চেয়েছেন তারা।

নাজমা ও অপু আরও জানান, বুধবার প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করে তার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী তাদেরকে দলের ভেতর পাপিয়ার মতো অপরাধের সাথে যুক্ত আরও কেউ আছে কিনা তা খুঁজে বের করতে বলেছেন।

তবে, গণভবন সূত্রে জানা যায়, যুবমহিলা লীগের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে বিশেষ খুশি হননি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে মঙ্গলবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জাতীয় কাউন্সিল নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেন যুবমহিলা লীগের নেতৃবৃন্দ।

উল্লেখ্য, ২০০২ সালে নাজমা-অপু যুগলের হাত ধরে যাত্রা শুরু করে যুব মহিলা লীগ। ২০১৪ সালের ৫ মার্চ দলটির প্রথম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলে নাজমাকে সভাপতি ও অপুকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত করা হয়। দলটির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী চলতি বছরের মার্চে বর্তমান কমিটির মেয়ার শেষ হওয়ার কথা। সূত্র: ঢাকা ট্রিবিউন

অমৃতবাজার/আরইউ