ঢাকা, সোমবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২০ | ১৩ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অর্থ আত্মসাতের দায়ে বিমানের সাবেক দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৫:৩৭ পিএম, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
অর্থ আত্মসাতের দায়ে বিমানের সাবেক দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার

 

সরকারের প্রায় ১১৮ কোটি টাকা ক্ষতিসাধন ও আত্মসাতের অভিযোগে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং বিভাগের সাবেক পরিচালক আলী আহসান বাবু ও ডিজিএম ইফতেখার হোসেন চৌধুরীকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য তাদের গ্রেফতারের বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার সকালে এ দু’জন ছাড়াও ১৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন দুদুকের উপপরিচালক মো. নাসির উদ্দিন। বিমানের কার্গো হ্যান্ডেলিং চার্জ বাবদ ১১৮ কোটা টাকা আদায় না করে সরকারের ক্ষতিসাধন করার অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে এ মামলা করা হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, পরস্পর যোগসাজসে ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে সরকারের ১১৮ কোটি টাকা ক্ষতি সাধন করেছে আসামিরা।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- ভারপ্রাপ্ত মহাব্যবস্থাপক (কার্গো) ম. হাবিবুল্লাহ আকন্দ, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক ও বর্তমানে সৌদি আরবে কান্ট্রি ম্যানেজার মো. শহিদুল ইসলাম, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক ও বর্তমানে সৌদি আরবের শহর রিয়াদের রিজিওনাল ম্যানেজার আমিনুল হক ভূঁইয়া, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক মো. লুতফে জামাল, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক মোশাররফ হোসেন তালুকদার, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক রাজীব হাসান, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক নাসির উদ্দীন তালুকদার, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক অনুপ কুমার বড়ুয়া, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক কেএন আলম, কার্গো আমদানি শাখার সহকারী ব্যবস্থাপক মো. ফজলুল হক, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক সৈয়দ আহমেদ পাটোয়ারী, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক মনির আহমেদ মজুমদার, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক একেএম মনজুরুল হক ও সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক মো. শাহজাহান।

এদের মধ্যে আলী আহসান ও ইফতেখার হোসেনকে আজ দুদুকে তলব করা হয়। সেখান থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কার্গো পরিবহনে সুষ্ঠুয বাণিজ্যিক পরিকল্পনার অভাবে বিভিন্ন সময় লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদও প্রকাশিত হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বিমানের অভ্যন্তরীণ নীরিক্ষার হিসাব মতে, ২০০৮ সাল থেকে প্রতি বছর কার্গো হ্যান্ডলিং চার্জ বাবদ ৭৬ কোটি টাকা লুটপাট হয়েছে। ১০ বছরে উল্লেখিত খাত থেকে আত্মসাৎ করা হয়েছে হাজার কোটি টাকা।

অমৃতবাজার/এএস