ঢাকা, সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ভারতে ইলিশ রফতানির প্রথম চালান বেনাপোলে আটকে গেল


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১২:১৮ পিএম, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
ভারতে ইলিশ রফতানির প্রথম চালান বেনাপোলে আটকে গেল

হিন্দু সম্প্রদায়ের সব থেকে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা উপলক্ষে ভারতে ৫০০ টন ইলিশ রফতানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রোববার প্রথম চালানে ২৪ মেট্রিক টন ইলিশ মাছ বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে রফতানির কথা ছিল।

জানা গেছে, রোববার বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে সে চালান যায়নি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো সুপার নাসিদুল হক বলেছেন, কাগজপত্র ও মাছের ট্রাক না আসায় আজ ইলিশের চালানটি রফতানি হয়নি ভারতে।

তিনি বলেন, মাছ রফতানির জন্য রোববার সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত কেউ কোনো কাগজপত্র আমাদের দফতরে দাখিল করেনি। মাছের কোনো ট্রাকও আমাদের রিপোর্ট করেনি।

তবে সোমবার সকালে কাস্টম হাউজে কাগজপত্র দাখিল করা হবে বলে জানান তিনি। আনুষ্ঠানিকা শেষে সোমবার দ্রুত পণ্য চালানটি ছাড় দেয়া হবে। এর আগে বাণিজ্য মণত্রনালয় থেকে জানানো হয়েছিল শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ২৪ টন ইলিশের প্রথম চালান ভারত রফতানি হবে।

তবে তা পিছিয়ে রোববার পাঠানো হচ্ছে বলে বেনাপোল বন্দর সূত্র জানায়।

সেই মোতাবেক সব ঠিক থাকলেও রোববারও ইলিশের চালান ভারতে গেল না।

ইলিশ মাছ রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানের বেনাপোলের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট এমি এন্টারপ্রাইজের প্রতিনিধি মহিদুল হক জানান, রোববার বিকেলে ৬ ট্রাক মাছের মধ্যে মাত্র এক ট্রাক মাছ আমরা হাতে পেয়েছি। আজ রাতের মধ্যে আরো ৫ ট্রাক মাছ আসার সম্ভাবনা রয়েছে। সোমবার সকালে মাছ রফতানির প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আমরা কাস্টমে দাখিল করব। তারপর মাছ রফতানি হবে।

জানা যায়, ভারতে পাঠাতে প্রতি কেজি ইলিশের মূল্য ছয় ডলার (প্রায় ৫০০ টাকা) ধরা হয়েছে। শুল্কমুক্ত সুবিধায় ছাড় করা হবে ইলিশের এ চালান।

এ বিষয়ে ব্যবসায়ী সৈয়দ মহিতুল হক রুবাই জানান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে পূজা উপলক্ষে ভারতে ৫০০ টন ইলিশ রফতানির সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী ১০ অক্টোবরের মধ্যে ৫০০ টন ইলিশের সব চালান সেখানে রফতানির নির্দেশনা রয়েছে।

বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিন বলেন, দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা হিসেবে ভারতে ৫০০ টন ইলিশ পাঠানো হচ্ছে। তবে এটি রফতানির কোনো বিষয় নয়। দুর্গাপূজা উপলক্ষে শুধু পাঠানো হবে। পশ্চিমবঙ্গে ৫০০ টন ইলিশ রফতানির বিশেষ অনুমতি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা ভারতের কলকাতায় ইলিশ নিয়ে যাবেন। পরে সেখানকার বাজারে তা বিক্রি করবেন। মূলত কলকাতার বাজারেই এ ইলিশ বিক্রি হবে।

২০১২ সালের পর থেকে ভারতে ইলিশ রফতানি বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ। এর পর থেকে বৈধভাবে বাংলাদেশের ইলিশ পশ্চিমবঙ্গে যায়নি।

কলকাতায় ইলিশ ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আনোয়ার মকসুদ বলেন, ২০১২ সালের ৩০ জুলাই বাংলাদেশ সরকার ভারতে ইলিশ রফতানি বন্ধ করে দেয়।

এবার দুর্গাপূজায় বাংলাদেশ সরকার পশ্চিমবঙ্গে ৫০০ টন ইলিশ রফতানির অনুমতি দিয়েছে। প্রথম চালান রোববার আসবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ছাড়পত্র দেয় ২২ সেপ্টেম্বর।

এই ইলিশ কয়েক ধাপে আগামী ১০ অক্টোবরের মধ্যে পৌঁছাবে পশ্চিমবঙ্গে। বেনাপোল-পেট্রাপোল সীমান্ত পথে ইলিশ যাবে কলকাতায়। এর পর এই ইলিশ চলে যাবে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন বাজারে।

এ বছর পশ্চিমবঙ্গে তেমন ইলিশ ধরা পড়েনি। গত বছর যে ইলিশ ২০০ রুপি কেজিতে বিক্রি হয়েছিল, এবার সেই ইলিশ ৫০০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে।

 অমৃতবাজার/ কেএসএস