ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৭ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বেশি দিন সুখে থাকবে না রোহিঙ্গারা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৪:৪৮ পিএম, ২৩ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার
বেশি দিন সুখে থাকবে না রোহিঙ্গারা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

 

রোহিঙ্গাদের প্রতি ভবিষ্যতে কঠোর হবে বাংলাদেশ। বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এমনটা জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

তিনি বলেন, "রোহিঙ্গাদের অনাগ্রহের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ এক সময় কঠোর হবে। এখন তো তারা খুব সুখে আছে। কিন্তু সুখে খুব বেশিদিন থাকবে না। এরই মধ্যে টাকা-পয়সা কমছে। রোহিঙ্গাদের নিয়ে যারা কাজ করছে তারাও কঠোর হবে।"

পররাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, নিজেদের তাগিদেই দেশে ফিরে যাওয়া উচিত রোহিঙ্গাদের। "তারা যদি ফেরত যেতে না পারে তাহলে তাদের নিজেদের সাথে সাথে তাদের সন্তানদেরও ভবিষ্যৎ অন্ধকার।"

কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, "রোহিঙ্গা শিশুদের পড়ানোর দায়িত্ব নিতে পারবে না বাংলাদেশ। কারণ তাদের ভাষার কোন শিক্ষক নেই এখানে। আস্তে আস্তে তাদের পুরো প্রজন্ম ধ্বংস হয়ে যাবে।"

বৃহস্পতিবার রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরুর কথা থাকলেও তাদের অনাগ্রহের কারণে তা শুরু করা যায়নি। তবে, টেকনাফে রোহিঙ্গা শিবিরের কাছে পরিবহণ প্রস্তুত রাখা হয়েছে যাতে করে কোন রোহিঙ্গা ফেরত যেতে চাইলে যাতে তাদের বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত পর্যন্ত পৌঁছে দেয়া যায়।

এই প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করতে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ, চীন ও মিয়ানমারের প্রতিনিধিরা। ব্যাপক প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও নিজেদের দেশে ফেরত যেতে চায়নি রোহিঙ্গারা। এর আগেও গত বছরের নভেম্বরে আরেক দফা প্রত্যাবাসনের কথা থাকলেও রোহিঙ্গাদের অনাগ্রহের কারণে সে প্রচেষ্টাও ভেস্তে যায়।

এমন অবস্থায় রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন আদৌ সম্ভব কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, "আমরা প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবো। এবার বেশি আশা ছিল। কারণ চীন অনেক বেশি আগ্রহ দেখিয়েছিল, মিয়ানমারও অনেক অ্যাকোমোডেশন নিয়ে এসেছিলো।"

তিনি বলেন, "কিন্তু শেষ হল না কারণ এটা একটা প্রক্রিয়া। আজকে শুরু হয়নি, কিন্তু ভবিষ্যতে শুরু হতে পারে। এটা সব রোহিঙ্গা একসাথে যাবে তেমনটা না, কিন্তু শুরুটা আমরা করতে পারি।"

রোহিঙ্গারা যাতে ফেরত না যায়, তার জন্য `একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে` বলেও অভিযোগ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

তিনি অভিযোগ করেন, "রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে বিভিন্ন ধরণের প্রচারণা চলছে, ফ্লাইয়ার দিয়ে ক্যাম্পেইন চালানো হচ্ছে। এমন অবস্থায় মনে হচ্ছে যে, একটা মহল রোহিঙ্গারা যাতে না যায় তার জন্য ফন্দি-ফিকির করছে।"

তবে দীর্ঘ মেয়াদে এসব `ফন্দি-ফিকির` কাজ করবে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি। তিনি বলেন, "বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের এখনো পর্যন্ত অনেক ভালোভাবে দেখাশুনা করেছে। কিন্তু তাদেরকে ভবিষ্যতে এভাবে রাখা সম্ভব হবে না।"

"এছাড়া আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ও সাহায্য সহযোগিতার মাত্রা কমিয়ে দিয়েছে। আগামীতে আরো কমবে। এরইমধ্যে আড়াই হাজার কোটি টাকা নিজেদের পকেট থেকে দিয়েছি। আর তেমন সম্ভব না।"

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে ১৩০টিরও বেশি আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থা কাজ করছে। এরা বিভিন্ন ধরণের বায়নার কথাও তুলেছে। তারা বলছে যে, রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার আগে রক্ষা করতে হবে।

অমৃতবাজার/এএস