ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মিয়ানমারের লক্ষ্য রোহিঙ্গাদের জাতিগতভাবে নির্মূল করা: জাতিসংঘ


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৭:৫২ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০১৬, বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৭:৫৮ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০১৬, বৃহস্পতিবার
মিয়ানমারের লক্ষ্য রোহিঙ্গাদের জাতিগতভাবে নির্মূল করা: জাতিসংঘ

কক্সবাজারের উখিয়ার একটি শরণার্থী ক্যাম্পে মোহাম্মদ আয়াজ এবং তার শিশু সন্তান। তার পরিবারের বেঁচে আছে এই দুইজনই। বাংলাদেশে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার প্রধান জন ম্যাককিসিক জানিয়েছেন মিয়ানমার তাদের ভূখণ্ড থেকে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে ‘জাতিগতভাবে নির্মূল’ করার চেষ্টা করছে। বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে এ কথা বলেন তিনি।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গেল অক্টোবর মাসে মিয়ানমারে বিদ্রোহীদের দমনে অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে রোহিঙ্গারা এর শিকারে পরিণত হয়। তারপর হাজারো রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। আরও অনেক মানুষ জড়ো হয়েছে সীমান্তে। মিয়ানমারে কমপক্ষে ১০ লক্ষ রোহিঙ্গা রয়েছে। মুসলিম এই জাতিগোষ্ঠীকে বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ মিয়ানমার এখনো নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি।

কক্সবাজারে বিবিসিকে দেয়া সাক্ষাতকারে জন ম্যাককিসিক বলেন, মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গাদের হত্যা করছে সেনাবাহিনী সেই সঙ্গে বাংলাদেশে পালিয়ে যেতে বাধ্য করছে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী পুরুষদের হত্যা করছে, শিশুদের জবাই করছে, গুলি করছে, নারীদের ধর্ষণ করছে, বাড়িঘরে আগুন লাগিয়ে লুটপাট করছে। আর এই কারণে রোহিঙ্গারা বাধ্য হেয়ে নাফ নদী পেরিয়ে প্রবেশ করছে বাংলাদেশে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার যদি রোহিঙ্গাদের জন্য সীমান্ত খুলে দেয় তাহলে মিয়ানমার সরকার তাদের উপর অত্যাচার বাড়িয়ে দেবে যেন তারা বাধ্য হয় মিয়ানমার ছেড়ে চলে যায়। কারণ মিয়ানমার সরকারের একমাত্র লক্ষ্য সংখ্যালঘু মুসলিমদের জাতিগতভাবে নির্মূল করা।

বুধবার রোহিঙ্গা শরণার্থী অনুপ্রবেশের চেষ্টা বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষাপটে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে পাঠায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত মিও মিন সানের কাছে রোহিঙ্গা সংকট ইস্যুতে বাংলাদেশ সরকারের উদ্বেগ প্রকাশ করেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বিষয়ক সচিব কামরুল আহসান । রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর নির্যাতন এবং আক্রমণ বন্ধ করতে আহ্বান জানান তিনি ।

অমৃতবাজার/আরএইচ